সাভারে কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ | DailyNatunDiganto.Com
মূলপাতা / অপরাধ / সাভারে কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ

নতুন দিগন্ত ডেস্ক

Site Administrator

সাভারে কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ

২৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১:৩১

 

সাভার প্রতিনিধি : উজ্জল হোসেন

ঢাকার সাভার পৌরসভার অস্থায়ী কাঁচাবাজার ইজারার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে একই ব্যবসার দুইজন অংশীদারের বিরুদ্ধে। এঘটনায় অপর অংশীদাররা পুলিশ ঢাকা রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয় বরাবর লিখিত অভিযোগ জমা দেয়।

সাভার পৌরসভার কাঁচাবাজার ১১ জন অংশীদার ৬৭ লাখ টাকার বিনিময়ে ২০১৮-১৯ সালের ১ বছরের জন্য ইজারা নেয়। পরে জহির প্রথম পক্ষ এবং দ্বিতীয় পক্ষ আয়নাল হকসহ ১১ জন অংশীদারের লিখিত চুক্তি হয়। ওই বাজারের ইজারা তোলার দায়িত্ব নেন অপর অংশীদার আলমগীর হোসেন মাখন ও আয়নাল হক গেদু। এসময় তারা প্রতিদিন ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা ইজারার টাকা উত্তোলন করে মোট ১৬৫ দিন। যাতে মোট টাকার পরিমান হয় ২ কোটি ৪৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

টাকা আত্মসাতের অভিযোগে অভিযুক্তরা হলেন, আলমগীর হোসেন মাখন, অপর জন হলো সাভার পৌরসভার ৯ নং কাউন্সিলর আয়নাল হক গেদু।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, চলতি এক বছরের জন্য মোট ১১ জনের অংশীদারিত্বে শুরু করেন বাজার ইজারার ব্যবসা। পরে প্রায় ৭ মাস টাকা উত্তোলণ করে অপর অংশীদারদের কোন রকম টাকা না দিয়ে ২ কোটি ৪৭ লাখ ৫০ হাজার টাকাই তারা অাত্মসাৎ করছেন। তাদের কাছে বাকি অংশীদাররা তাদের পাওয়া টাকা চাইলে নানা রকম তালবাহানা করে। শুধু সময় ক্ষেপণ করতে থাকে কিন্তু কোন রকম টাকা পরিশোধ করে না। পরে বাধ্য হয়ে গত ১৩/১০/২০২০১৯ তারিখে ভুক্তভোগী চারজন ঢাকা রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করেন।

এব্যাপারে ভুক্তভোগী এক অংশীদার লিটন ভান্ডারী বলেন, কাঁচা বাজারের প্রায় দোকান থেকে আয়নাল হক গেদু ও আলমগীর হোসেন মাখন ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা করে অগ্রিম নিয়ে আত্মসাৎ করেছে। এই কাঁচাবাজারে প্রায় ১৬০ টি দোকান আছে।

জানতে চাইলে আলমগীর হোসেন মাখন বলেন, এ ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না। পরক্ষণেই প্রতিবেদককে ফোন করে সাক্ষাৎ করতে বলেন। তিনি বলেন চলতি মাসের ১২ তারিখ থেকে আমরা ৫ জন এবং বাদীপক্ষ ৭জন সমানহারে টাকা ভাগ করে নিচ্ছেন।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে অভিযুক্ত পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আয়নাল হক গেদু আগামীর সংবাদকে গত(২৮শে নভেম্বর) জানান, ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের ওসি মামুন সাহেব এর অফিসে আমরা দুই পক্ষ বসে আপোষ করেছি। এখন থেকে দুই পক্ষই সমান হারে নিচ্ছে।

এব্যাপারে অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের পুলিশ পরিদর্শক আল মামুন জানান, অংশীদারের প্রায় ৭ মাসের লভ্যাংশ না দিয়ে আত্মসাৎ করেন অপর অংশীদার আয়নাল হক গেদু ও আলমগীর হোসেন মাখন। পরে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ দায়ের করেন। বিষয়টি নিয়ে দুপক্ষই বসা হয়েছিলো।

For Advertisement

01672575878

দৈনিক নতুন দিগন্ত প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত:

error: Content is protected !!