সিঙ্গাইর উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে অবৈধ অর্থ ও সম্পদের মালিক হওয়ার অভিযোগ উঠেছে;সম্পদের তথ্য গোপন, হলফনামায় গড়মিল। | DailyNatunDiganto.Com
মূলপাতা / Uncategorized / সিঙ্গাইর উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে অবৈধ অর্থ ও সম্পদের মালিক হওয়ার অভিযোগ উঠেছে;সম্পদের তথ্য গোপন, হলফনামায় গড়মিল।

নতুন দিগন্ত ডেস্ক

Site Administrator

সিঙ্গাইর উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে অবৈধ অর্থ ও সম্পদের মালিক হওয়ার অভিযোগ উঠেছে;সম্পদের তথ্য গোপন, হলফনামায় গড়মিল।

২৭ অক্টোবর, ২০১৯, ২:১৫

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন
নিজস্ব প্রতিবেদক:
মানিকগঞ্জ জেলার সিংগাইর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্নসাধারণ সম্পাদক শহিদুর রহমান শহীদের বিরুদ্ধে অবৈধ অর্থ ও সম্পদের অনুসন্ধানে জানা যায়, কোটি কোটি টাকার মালিক ও সম্পদ গড়েছেন তিনি। স্থানীয়রা জানান তিনি অবৈধ পথে কোটি কোটি টাকা ও সম্পদের মালিক হয়ে যায় গত ৪ বছরে। শহিদুর রহমান শহিদ ও স্ত্রীর নামে বিভিন্ন ব্যাংকে এফডিআর রয়েছে। ২০১২ সনে একটি টিনের দোচালা ঘরে বসবাস করলেও বর্তমানে আলীশান ভবনে বসবাস করে। ২০১৭ সনে ১২ শতাংশ জমির উপর বিলাশবহুল ভবনের নির্মাণ শেষ করে। ভবনটি নির্মাণে খরচ হয়েছে কয়েক কোটি টাকা। বর্তমানে দৃশ্যমান কোন আয়ের উৎস নেই। সিঙ্গাইর পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড বেপারীপাড়া এলাকায় রয়েছে ১০৫ শতাংশ জমি শহিদ ও তার স্ত্রীর নামে। শহিদুর রহমানের স্ত্রীর নামেও বেনামে রয়েছে কয়েক কোটি টাকার সম্পদ।

গত উপজেলা নির্বাচনে নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে পরাজিত হয় শহিদুর রহমান শহিদ। নির্বাচনী হলফনামায় সম্পদের বিবরণীতে দেখা যায় রিয়েল এস্টেট এবং জমি ক্রয়-বিক্রয়ের ব্যবসা। সম্পত্তির মধ্যে দেখান ১০০ ভরি গহনা যাহার মূল্য ৩৪ লাখ টাকা। ৪০ ভরি স্ত্রীর নামে ৬০ ভরি তার নামে। গত ২০১৮ সনের জুন মাসে আমাদের সময় নামের একটি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদে শহিদুর রহমান শহীদের বিরুদ্ধে গোয়েন্দা পুলিশ মাদকের সূত্রে অভিযুক্ত করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ প্রতিবেদন জমা দেয় মানিকগঞ্জ এসপি কার্যালয়ে।

গত ২০১৮ সনের ২৭শে ফেব্রুয়ারীতে দৈনিক প্রথম আলোতে নদী দখল সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। মানিকগঞ্জ জেলা সিংগাইর ও হরিরামপুর এলাকার সংসদ সদস্যর ভাগিনা হিসেবে তার একটি প্রভাব রয়েছে সিংগাইর উপজেলায়। সরকারের বিদ্যুৎ উন্নয়নের প্রকল্পের পাওয়ার জেনারেশন নামে একটি বেসরকারি কোম্পানিকে জমি ক্রয় করার কথা বলে নদীর জমি দখল নিয়ে বিক্রি করে শহিদসহ তিনজন। সিংগাইর থানার ধল্লা ইউনিয়নের ধলেশ্বরী নদীর জমি ব্যক্তি মালিকানা দেখিয়ে বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। নদী দখলের অভিযোগে সিংগাইর থানায় ধল্লা ভূমি অফিসের নায়েব বাদী হয়ে মামলা করেন গত ২০১৮ সনে। মামলা নাম্বার ২০১৮/১ ।

নির্বাচনী হলফ নামায় তার সম্পদ বিবরন তালিকায় দেখায় ১২.৫ শতাংশ জমি ও ভবনের মূল্য ১ কোটি ৭৬ লাখ ১৬ হাজার টাকা প্রায়।

অনুসন্ধানে পাওয়া যায় ১২.৫ শতাংশ জমির মূল্য ৮৭ লাখ টাকা। প্রতি শতাংশ জমির মূল্য ৭ লাখ টাকা করে। সিংগাইর পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড
বেপারীপাড়া এলাকায় ১০৫ বিঘা জমি রয়েছে যার প্রতি শতাংশ জমির মূল্য প্রায় ৩ লাখ টাকা করে মোট জমির মূল্য ৩ কোটি ১৫ লাখ টাকা।

বিগত ৪ বছর আগে আওয়ামীলীগের উপজেলা কমিটি গঠন হয়। সেই কমিটিতে যুগ্মসাধারণ সম্পাদক পদ পাওয়ার পর থেকেই তিনি রাতারাতি কোটি কোটি টাকার মালিক ও সম্পদের পাহাড় গড়েছেন।

সিংগাইর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে পদ বানিজ্যর অভিযোগ রয়েছে শহিদের বিরুদ্ধে। এছাড়া তার যৌথ ব্যাংক একাউন্ট রয়েছে ন্যাশনাল ব্যাংক সিংগাইর শাখায় শহিদ, রাজু ও আমজাদ হোসেনের নামে।

শহিদুর রহমান সহিদ এর কাছে অবৈধ সম্পদ ও কোটি কোটি টাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন ৫তলা ভবনের জমি তার স্ত্রীর নামে। এবং ভবনটি ব্যাংক লোন নিয়ে করে করা হয়েছে বলে জানান। সিংগাইর ডার্চবাংলা ব্যাংক থেকে তিনি ৪০ লাখ টাকা লোন নেন ২০১৮ সনের জুন মাসে। ব্যাংক লোন নেওয়ার আগেই তার ভবন নির্মাণ কাজ শেষ করে ২০১৭ সনে।

সম্পদের বিষয়ে বলেন তার কোন অবৈধ সম্পদ নেই।
একটি মহল তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন।
মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণত সম্পাদক আব্দুস সালামকে কল করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করে নাই। এই জন্য তার বক্তব্য নেওয়া যায়নি।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক ও সেতু মন্ত্রী জনাব ওবায়দুল কাদের কে মুঠোফোনে কলা করা হলে তিনি রিসিপ করেনি তাই তার বক্তব্য নেওয়া যায়নি। পরে ক্ষুদে বার্তার মাধ্যমে বিষয়টি অবগত করা হয়েছে।

For Advertisement

01672575878

দৈনিক নতুন দিগন্ত প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত:

error: Content is protected !!